মেসির প্রতি আকুতি ঘরের ছেলে ঘরে ফিরে এসো

ক্রীড়া ডেস্ক :: মেসির বার্সেলোনা ছাড়তে চাওয়ার খবরে তাকে দলে নিতে হুমড়ি খেয়ে পড়েছে ইউরোপের বড় ক্লাবগুলো।

বসে নেই মেসির শৈশবের ক্লাব নিউওয়েলস ওল্ড বয়েজও। ১৩ বছর বয়সে জন্মভূমি আর্জেন্টিনা ছেড়ে বার্সেলোনায় পাড়ি জমানোর আগে নিজের শহর রোজারিওর এই ক্লাবেই ফুটবলে হাতেখড়ি মেসির।

অতীতে বহুবার তিনি বলেছেন, সুযোগ থাকলে ওল্ড বয়েজের জার্সিতেই ক্যারিয়ারের ইতি টানতে চান। শৈশবের দলের প্রতি মেসির ভালোবাসাকে পুঁজি করেই অসম্ভবের স্বপ্ন দেখছে ওল্ড বয়েজের সমর্থকরা। ঘরের ছেলেকে ঘরে ফেরাতে রাস্তায় নেমেছে তারা।

বৃহস্পতিবার রোজারিওতে মিছিল করে আর্জেন্টাইন জাদুকরকে ওল্ড বয়েজে ফিরে আসার আকুতি জানিয়েছে তারা। মিছিলের অগ্রভাগে থাকা ব্যানারে লেখা ছিল, ‘তোমার স্বপ্ন, আমাদের আকাঙ্ক্ষা’। এসবই ভালোবাসার দাবি থেকে। কারণ, সময়ের সেরা ফুটবলারকে কেনার মতো আর্থিক সক্ষমতা নেই ওল্ড বয়েজের। মেসি যদি বিনা ট্রান্সফার ফি’তে বার্সেলোনা ছাড়তে পারেন সেক্ষেত্রেই শুধু তার শিকড়ে ফেরার সুযোগ থাকবে।

ওল্ড বয়েজ সমর্থকদের মতো নেইমারও বন্ধুত্বের দাবি নিয়ে মেসিকে পটানোর মিশনে মাঠে নেমেছেন। মেসির সম্ভাব্য নতুন ঠিকানা হিসেবে সবচেয়ে বেশি শোনা যাচ্ছে ম্যানসিটির নাম। দৌড়ে আছে নেইমারের পিএসজিও। ফরাসি ক্লাবে মেসির সঙ্গে নতুন করে জুটি বাঁধতে উদগ্রীব ব্রাজিলীয় ফরোয়ার্ড।

বার্সেলোনায় চার মৌসুম একসঙ্গে খেলেছেন দু’জন। পরে তাদের পথ দুদিকে বেঁকে গেলেও বন্ধুত্বে চিড় ধরেনি। টেলিফুটের দাবি, মেসির বার্সেলোনা ছাড়তে চাওয়ার খবর জানতে পেরেই ফোনে তাকে পিএসজিতে যোগ দেয়ার প্রস্তাব দেন নেইমার। দু’জনের মধ্যে এ নিয়ে কয়েকবার কথা হয়েছে। পাশাপাশি পিএসজির কাছে মেসিকে কেনার অনুরোধ করেছেন নেইমার। তবে পিএসজি এখনও আনুষ্ঠানিক কোনো প্রস্তাব দেয়নি বার্সাকে।

প্রস্তাব পাঠানোর মতো পরিস্থিতিও অবশ্য তৈরি হয়নি। কারণ, দলবদলের জন্য সবার আগে বার্সেলোনার সঙ্গে সমঝোতায় আসতে হবে মেসিকে। কিন্তু দুই পক্ষের অনড় অবস্থানে বিষয়টি আদালতে গড়ানোর দিকে এগোচ্ছে।

স্প্যানিশ মিডিয়ার দাবি, মেসি বার্সেলোনায় থেকে যেতে চাইলে পদত্যাগে রাজি ক্লাব সভাপতি বার্তোমেউ। কিন্তু মেসি তার সঙ্গে আলোচনায় বসতেই নারাজ। আর মেসি নমনীয় না হলে তার রিলিজ ক্লজের ৭০০ মিলিয়ন ইউরো এক পয়সা কমেও তাকে ছাড়বে না কাতালানরা। ফলে শেষ পর্যন্ত মেসির ভবিষ্যতে কী লেখা আছে, তা এখনই বলা যাচ্ছে না। শোনা যাচ্ছে, শিগগিরই বার্সা ছাড়তে চাওয়ার কারণ প্রকাশ্যে জানাবেন ৩৩ বছর বয়সী আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড।

এর আগেও তিনবার দলবদলের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন মেসি। কিন্তু শেষ পর্যন্ত ন্যুক্যাম্প ছাড়া হয়নি তার। এবার বার্সা ছাড়তে সত্যিই তিনি মরিয়া। বার্তোমেউ ও বার্সা বোর্ডের একের পর এক হঠকারী সিদ্ধান্তে ন্যুক্যাম্পে তার মন বিষিয়ে উঠেছে।

খেলোয়াড়দের বিষয়ে বার্তোমেউ প্রশাসন কতটা অদক্ষ ও বিশৃঙ্খল, তা বোঝা যায় আঁতোয়া গ্রিজমানের ঘটনা থেকেই। মেসি চলে গেলে গ্রিজমানকে ঘিরেই দল ঢেলে সাজাতে চান বার্সার নতুন কোচ রোনাল্ড কোমান। অথচ, কিছুদিন আগেই ফরাসি ফরোয়ার্ডকে তার সাবেক ক্লাব অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদে ফেরত পাঠাতে চেয়েছিলেন বার্তোমেউ! গ্রিজমানের বদলে অ্যাটলেটিকোর পর্তুগিজ সেনসেশন হোয়াও ফেলিক্সকে চেয়েছিলেন বার্সা সভাপতি। কিন্তু অ্যাটলেটিকো সেই প্রস্তাবে রাজি হয়নি। এসব ঘটনাও মেসির বিরক্তি বাড়িয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের অপশনে ক্লিক করুন

এ জাতীয় আরও সংবাদ :




Facebook Page


Scroll Up